স্কুল কোড : ৭৩০০, এমপিও : ৮৯০৩০১১৩০৪, থানা কোড : ৫৫২০, ইআইআইএন নং: ১২২৮৩২
Text size A A A
Color C C C C

“দ্বন্দ্ব কাঠিয়ে ওঠার আমার অভিজ্ঞতা”

“দ্বন্দ্ব কাঠিয়ে ওঠার আমার অভিজ্ঞতা”


“দ্বন্দ্ব কাঠিয়ে ওঠার আমার অভিজ্ঞতা”

সাদিয়া মোবাশ্বিরা

সপ্তম শ্রেণি

কালীগঞ্জ করিম উদ্দিন পাবলিক পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়

শিক্ষাঞ্চল কালীগঞ্জ, লালমনিরহাট।

 

হ্যা, আমারও একটি দ্বন্দ অতিক্রম করার অভিজ্ঞতা আছে কারন আমি দ্বন্দের মুখোমুখি হয়েছি। সেখান থেকে আমি শিখেছি কিভাবে সেক্রিফাইস করতে হয়। কিভাবে সব কিছু মানিয়ে নিতে হয়। কিভাবে সব কিছু গুছিয়ে নিতে হয়। তবে সেক্রিফাইস করা ভালো। আমার অভিজ্ঞতা হচ্ছে যখন আমার ছোট ভাইকে আমার মা পড়তে বসায় তখন সে বলে আমি পড়বো না। আম্মু বলে কেনো পড়বিনা। তখন সে বলে আমি পড়লে বুবুকেও পড়তে হবে। কিন্তু আমি পড়তে বসবো না। তখন আম্মু বলে আমাকে পড়তে বসতে। কিন্তু আমি পড়বো না । তার পর আরো কয়েকবার বলে আমি বলি পড়বোনা পড়বোনা তখন আমার ভাই এসে আমাকে মারত আর বলত আমি পড়লে তোমাকেও পড়তে হবে। তবে আমি তাও পড়তে বসি নাইআর আম্মু আমাকে জোর করে পড়তে বসায়। তবে আমাদের বেশির ভাগ সময়ই এরকম হয়। একদিন আমার ভাই পড়তে বসে আর খুব দুষ্টমি করতে থাকে। তার জন্য আম্মু তাকে মারছে প্রথমে ভালো করে বলছে কিন্তু সে শোনে নাই তাই আম্মু রাগ হয়ে তাকে মারছে। পরের দির আমি তার আগেই পড়তে বসলাম আমার দেখে আমার ভাই আম্মুকে গিয়ে বলে সেও পড়তে বসবে। তখন আমি ভাবলাম আমার জন্য ও পড়তে বসছে। যদি আমি পড়ি তাহলে সে ও পড়বে। কিছু শব্দ, বাক্য, কবিতা শিখবে। এখন থেকে পড়লে বড় হলে আরও পড়ার আগ্রহ বাড়বে । আবার মাঝে মাঝে আমিও তাকে পড়াতে বসাতাম। এখন থেকে আমি শিখেছি কিভাবে সেক্রিফাইস  করতে হয়। এখন থেকে মাঝে মাঝে দ্বন্দ লাগলে আমি চেষ্টা করি সবার সাথে সেক্রিফাইস করার জন্য। কারণ সেক্রিফাইস করা আমার ও তার বা তাদের জন্য ভালো সেখানে নিজেকে মানিয়ে নিতে হবে। আবার আমার সেক্রিফাইসের কারণে তার মত পাল্টাতে পারে ঐ মত পাল্টালে তার জীবনও বদলাতে পারে। তাই আমাদের সকলের উচিত সেক্রিফাইস করা।